অন্ধকারঘড়ে সাপ যেন সমস্ত ঘড়েই যেন সাঁপ !

এ বছর অর্থাৎ ২০১৫ সাল শুরুই হয়ে ছিলে ইদুঁর বিড়াল খেলার গল্প দিয়ে । বছরের দ্বিতীয় মাস অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির ২৬ তারিখে প্রায় দিবালোকে ই বাংলা একাডেমির বইমেলার মূল ফঁটের কাছেই ঘাতকের চাপাতির কোপে খুন হতে হয় মুক্তমনা ব্লগার ও লেখক অভিজিৎ রায় কে সাথে গুরুতর আহত হন তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যা । অভিজিৎরায় হত্যার দায় স্বীকার করে নেয় উগ্র ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিম। এর পর থেকেই  একে একে খুন হন বাবু, বিজয় ,নীল ,দীপন সহ দুই বিদেশীনাগরিক যার প্রতিটির ই দায় স্বীকার করে নিয়েছে নানা নামের উগ্র ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন । পরিশেষে এই দায় স্বীকার নিয়ে ও বিতর্কের জন্ম হয় যখন দুই বিদেশি নাগরিকহত্যার পর এর দায় স্বীকার করে নেয় বর্তমান জামনার বহুল আলোচিত আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট আইএস । সরকার ও তার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীবলে আসছে যে বাংদেশে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট এর কোন অস্তিত্ব ই নাই হয়তো তাদের কিছু অনুসারী আছে তাদের এমন কথায় আমাদের মনে স্বস্তি আসেনি। কথার ভাবার্থ এমন  যে ময়লা নাই তবে দুর্গন্ধ ঠিক ই আছে যা পরিবেশকে নষ্ট করছে । যাই ই হউক শান্তি প্রিয় জাতি হিসেবে আমাদের ও চাওয়া যে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমিসকল অপশক্তির নজর থেকে মুক্ত থাকুক । কিন্ত সাম্প্রতি বেশ কিছু ঘটনা আমাদেরকে মানসিক ভাবে বেশ দুচিন্তায় রেখেছে । একের পর এক নানা ধর্ম ও মতার্দশে বিশ্বাসীদেরধর্মীয় আনুষ্ঠানে নারকীয় হামলার ঘটনা । সবশেষ যে ঘটনা বিশেষ করে চিন্তিত করেছে তা হলে রাজশাহীর সেই বাগমাড়ায় আহমাদিয়া মুসলিম জামাতের একটি মসজিদেআত্মঘাতী বোমা হামলা । এ ঘটনা আবার ও নতুন করে স্বরন করিয়ে দেয়  ” বাংলা ভাই ” ও ” শায়েখ আব্দুর রহমান ” দের কথা , স্বরন করিয়ে দেয় চাঁদপুর কিংবাগাজীপুরে আদালতে আত্মঘাতী বোমা হামলার কথা । গত কয়েকদিনে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জঙ্গি দমনে একটি বিশেষ ভূমিকায় অবর্তীন হয়েছেন । হঠাৎকরেই ঢাকা চট্রগ্রাম গাজীপুরে জঙ্গি আস্তানায় হানা অস্ত্র ও বিষ্ফোরক উদ্ধার গুলিতে জঙ্গি নিহত ইত্যাদি ঘটনা আমাদেরকে আনন্দিত করলেও কেন যানি মনের ভিতর একটাখটকা এটে যায় ? সারা দেশে এত গুলি জঙ্গি আস্তানা ও প্রশিক্ষন কেন্দ্র আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে গড়ে উঠল , আমাদের অতি প্রশিক্ষিত গোয়ান্দাসংস্হার লোকার ই বা কি করেছেন এত দিন ? হঠাৎ করে কিভাবে এত গুলি জঙ্গি আস্তানা ও প্রশিক্ষন কেন্দ্রের আবিস্কারে মনে হচ্ছে সাড়া দেশে আরো কত না জানি  জঙ্গিআস্তানা ও প্রশিক্ষন কেন্দ্র আছে ? অন্ধকার ঘড়ে সাপ মনে হয় যেন সমস্ত ঘড়েই যেন সাঁপ !  তাই স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন আসে যে সরকার কি এতদিন শুধু আমাদের আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়ান্দা সংস্হাকে শুধু মাত্র তাদের রাজনৈতিক প্রতি পক্ষকে প্রতিহত করার কাজে ব্যস্তছিল , যে সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠন গুলিনিশ্চিন্তে সংগঠিত হয়েছে করেছে শক্তি  সঞ্চয় ?

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s